Mukti

Mid-summer political ramblings – 2

Posted in politics by jrahman on June 25, 2011

To recap: Awami League feels it needs to win the next election by any means necessary.  That’s the central political problem as far as the ruling party is concerned.  All philosophical musings about ‘high ideals’ of 1971 or debates about economic or foreign policies are side shows.  Similarly, this or that formula for this or that problem is just filling in the details.  I plan on not writing much on the Awami League, because I don’t think the exercise is worth the energy.

Instead, I am going to write about BNP, whose problem — how to respond to AL — is trickier, and hence more interesting.

Now, let me state right at the beginning that I stay clear of predicting what will happen.  Nor do I give BNP (or AL or anyone else) any advice.  I am terrible at predicting, and I have never practised politics in Bangladesh.   So telling professional politicians what they should do, I leave that to professional pundits.

So, the AL would like to smash BNP up to pieces, perhaps by blackmailing and exiling Mrs Zia, perhaps by some other means.  How should BNP respond?

The primal, instinctive reaction I assume is to hit back.  Call a hartal.  Go on a rampage.

Well, this may sound like tantrum, but there is actually some method to this madness.  Street politics acts as deterrence, both at local level and nationally.  Politics in Bangladesh is a blood sport, whenever someone runs for anything, they know what the score is.  But when a party can demonstrate that it can meet violence with violence, there is a balance of terror, a MAD effect.  And the same is true nationally.  If BNP could shut down the country for a week, would AL have dared to demolish the house in Shaheed Moinul Road?

But then again, would AL have been really afraid of BNP’s hartals?  Which opposition party in the past four decades got its way through street politics?  Ershad resigned when Nuruddin Khan refused to save him.  BNP was undone first by MK Alamgir’s bureaucrats, then by Moeen U Ahmed and Masud Uddin Chowdhury.

And in any case, is BNP really able to dominate the streets?  Not according to Mahmudur Rahman:

প্রধান বিরোধী দল বিএনপির ঘর গোছানো কিছুতেই যেন শেষ হচ্ছে না। দলটির বড় বড় নেতারা বলে বেড়াচ্ছেন যে, তারা জনগণকে কষ্ট দিতে চান না বিধায় সরকারের অপশাসন, জুলুমের বিরুদ্ধে কঠোর কর্মসূচি দিচ্ছেন না। বিএনপির নীতিনির্ধারকদের এ জাতীয় বৈষ্ণবসুলভ, মহতী বক্তব্যে জেলের বাইরের জনগণ কতটা অনুপ্রাণিত বোধ করছেন বলতে পারব না, তবে জেলের ভেতরের বাসিন্দাদের ধারণা দলের সাংগঠনিক দুর্বলতা ঢাকতেই এক সময়ের রাজপথ কাঁপানো নেতারা এসব কথা বলছেন।

Now, Mahmudur Rahman has been quite a phenomenon, and I’ll post about him separately.  For now, let me note that he has been among those arguing for a tough street programme.

The counterargument is put by Shafiq Rehman:

আগের নিয়ম অনুসারে ২০১৪-র প্রথম দিকে একটি তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের কথা। অর্থাৎ এখন থেকে ৩১ মাস বা আড়াই বছর পর নির্বাচনটি হওয়ার কথা। আওয়ামী লীগ ভেবে দেখেছে, কোনো আন্দোলনই বিএনপি এতো দীর্ঘ সময় জুড়ে চালিয়ে যেতে পারবে না।

আওয়ামী লীগ মনে করছে, এখনই যদি বিএনপি আন্দোলনে হুড়মুড় করে নেমে পড়ে (এবং এই নেমে পড়ার জন্য বিএনপির একাংশের চাপও আছে) তাহলে আওয়ামী সরকার নিজেদের প্ল্যান ও টাইম অনুযায়ী বিএনপির শক্তি ক্ষয় করতে পারবে।

…..

২০১১ হচ্ছে বিএনপির আন্দোলনের জন্য আওয়ামী লীগের সেট টাইম ও প্ল্যান।

What Rehman is proposing is best practised by Moudud Ahmed, who has made himself invisible in all the legal-constitutional debates over the past year.  The implied tactics for BNP is simple: duck and cover, don’t say anything, don’t get arrested, let AL hang itself with its own ropes.  And Moudud’s passivity is complemented by Mirza Fakhrul Islam Alamgir’s behind-the-scene work which produced a stunning set of results in the local government elections in January.

Will this ‘do nothing until 2014’ approach work?

That depends on how badly AL performs, the proponents argue.  To the extent that AL’s trajectory is in only one direction (not up), the argument goes that its ability to impose a one-sided election will be severely limited.  BNP will not need to own the street, ordinary voters will ensure that AL is shown the door.  And the hyper-politicisation of the state machinery may well mean the vast number of school teachers / postal workers / government clerks / security personnel that are being antagonised now will foil any attempt of serious rigging.  Essentially, as long as the party leadership remains physically intact, at both national and local levels, AL will ensure its own defeat — that’s the Rehman-Moudud-Mirza thesis.  After all, as Rehman puts it rather caustically:

শেখ মুজিবুর রহমানের চরিত্রে প্রস্তাবিত কোনো মুভিতে অমিতাভ বচ্চন অভিনয় করলেও করতে পারেন অথবা দেশ টিভি-তে কে হবে কোটিপতি কুইজ অনুষ্ঠানে শাহরুখ খান উপস্থাপক হলেও হতে পারেন অথবা ফারাক্কা পয়েন্টে ইনডিয়া পানি দিলেও দিতে পারে কিন্তু অন্তত তিনটি বিষয়ে বিএনপি নিশ্চিত থাকতে পারে-গত ২৯ ডিসেম্বর ২০০৮-এর নির্বাচনী অভিযানে শেখ হাসিনা প্রতিশ্রুত দশ টাকা কেজিতে চাল খাওয়ানো সম্ভব হবে না। ঘরে ঘরে একটি চাকরি হবে না। বিনা মূল্যে সার দেয়া যাবে না।

And what about Awami repression?  Well, exactly how much worse could things get?  Surely AL can’t do anything more than what the 1/11 regime did?  In fact, with both her sons overseas, and the cantonment house demolished, arguably AL has less leverage over the BNP chief than the last regime did. 

But — ah you expected a but, surely — this ‘ride the anti-incumbency wave’ thesis also has its discontent.  Any government that comes solely on the basis of anti-incumbency does not have a governing agenda of its own.  The result is typically one of reacting from crisis to crisis, and eventual failure.  Particularly relevant for BNP is the hostility felt towards it — not entirely unjustly — by the country’s oligarchy and foreign powers.  As Asif Nazrul argues, BNP is not trusted by the establishment:

বিএনপির প্রতি তাঁদের বিদ্বেষের অন্যতম কারণ বিএনপির সাম্প্রদায়িক এমনকি কখনো কখনো জঙ্গিবাদ-প্রশ্রয়মূলক রাজনীতি।… বিএনপির ইমেজ-সংকটের আরও কারণ হচ্ছে, দলটির ওপর জামায়াতের প্রভাব, হাওয়া ভবনকেন্দ্রিক দুর্নীতি ও গোষ্ঠীপ্রীতি, তারেক রহমানের কিছু অনাকাঙ্ক্ষিত খবরদারি এবং ভারতকে উত্ত্যক্ত করার বিপজ্জনক রাজনীতি। এগুলো কতটা সত্যি তার চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে, এগুলো সত্যি হিসেবে সমাজের উপরিকাঠামোর বহু মানুষ এবং তরুণদের একটি বড় অংশ বিশ্বাস করে। বিএনপি যদি এসব মিথ্যে বলে মনে করে থাকে, দলটি তা জনগণকে বোঝাতে সক্ষম হয়নি। ১৯৯৬ সালে বিএনপিবিরোধী আন্দোলনে জামায়াতে ইসলামীকে সাফল্যজনকভাবে আওয়ামী লীগ ব্যবহার করতে পেরেছে, এ জন্য তাকে জামায়াতপ্রীতির অভিযোগে অভিযুক্ত হতে হয়নি। এবারও আওয়ামী লীগের সরকার রাষ্ট্রধর্ম বহাল রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, এ জন্য তাকে সাম্প্রদায়িকতার অভিযোগে ব্যাপকভাবে অভিযুক্ত হতে হয়নি। তুলনায় বিএনপি বরং জামায়াত ও বিভিন্ন সাম্প্রদায়িক শক্তি কর্তৃক ব্যবহূত হয়েছে, এদের ফাঁদে পা দিয়েছে এবং নিজের ভাবমূর্তি খুইয়েছে।

তথ্য সংগ্রহ ও অবলোকন করে মিত্র সম্প্রসারণের ক্ষমতা বিএনপির কম। তা বিদেশে যেমন, দেশেও তেমনি সত্যি। এর মূল্য বিএনপিকে এখনো দিতে হচ্ছে। বিএনপির আমলে যেকোনো অনিয়মে সরব নাগরিক সমাজ বা দাতাগোষ্ঠীর কেউ কেউ যে এই সরকারের আমলে নিশ্চুপ করে থাকেন, তার একটি বড় কারণ রাষ্ট্রক্ষমতায় বিএনপির (তথা সাম্প্রদায়িক বা জঙ্গি-সহায়ক শক্তি) ফিরে আসার ভয়।

তারেকের গ্রিন সিগন্যাল ছাড়া নেতা হওয়া যায় না এবং এই গ্রিন সিগন্যাল পাওয়ার প্রতিযোগিতায় বহু ভদ্রলোক নামতে চান না এই ধারণা সমাজে রয়েছে। অতীতে তাঁর আশীর্বাদ যেসব নেতা বা হাওয়া ভবনের কর্মকর্তা পেয়েছিলেন, তাঁদের কেউ কেউ দুর্নীতিবাজ, মেধাহীন, উদ্ধত হিসেবে পরিচিত। তারেক যে গিয়াসউদ্দিন আল মামুনকে নিজের বন্ধু হিসেবে গণমাধ্যমে উল্লেখ করেছেন, তিনি বিকারগ্রস্ত ও দুর্নীতিবাজ হিসেবে ব্যাপকভাবে পরিচিত ছিলেন। তারেককে ছাড়া নিজের বিচার-বিবেচনায় দলকে গুছিয়ে নেওয়ার মানসিকতা বেগম খালেদা জিয়ার আছে কি না, তারেকের সীমাবদ্ধতা তিনি মাতৃত্বের ঊর্ধ্বে উঠে অবলোকন করার ক্ষমতা রাখেন কি না, বা তারেক নিজেই তাঁর পরিশুদ্ধির প্রয়োজন অনুভব করেন কি না, এটি যথেষ্টভাবে পরিষ্কার না হওয়া পর্যন্ত বিএনপিতে মেধাবী, ত্যাগী ও সৎ নেতৃত্বের শক্তি জোরদার হবে না।

Unless you are running a radical movement (of whatever ideology), you cannot govern in the face of establishment hostility.  And I may not know anything about grass root politics in Bangladesh, but I believe I understand the political pulse of the bhadralok Bangladeshis.  They are not ready to accept Tarique Rahman or Jamaat-e-Islami, even as they reject the AL over, say, l’affaire Yunus.

So, neither the AL nor BNP, how long before we start hearing about the fabled ‘third force‘?

Tagged with:

3 Responses

Subscribe to comments with RSS.

  1. […] the Awami League wants to hang on to power after 2014 by any means necessary, and BNP‘s prospects of successfully resisting are rather […]

  2. On the caretaker system « Mukti said, on August 4, 2011 at 5:28 pm

    […] to power at any cost.  And as long it has the establishment support, or the establishment remains apprehensive about BNP, it will be able to stay in […]

  3. The Madam’s gambit « Mukti said, on October 29, 2011 at 6:02 pm

    […] whether BNP can overcome this crucially depends on whether they can lead a street movement like the one AL did […]


Comments are closed.

%d bloggers like this: