Mukti

The curious incidence at Hathazari

Posted in AL, communalism, faith, Islamists, politics, Rights by jrahman on April 11, 2012

There has been two very disturbing incidences in Bangladesh recently, suggesting that my fear of a return of overt communalism may be materialising.  Equally worrying is the lack of concern about these worrying trends.  If not for the students of Dhaka University, most people wouldn’t have even heard that something happened in Satkhira.  Meanwhile, the incidence at Hathazari is forgotten except for some outposts of the blogosphere such as this, this and this.

The silence in both cases is puzzling and distressing.  Puzzling because in both cases, the government appears to have done the right thing.  These weren’t communal riots.  Riots require two sides.  These were brazen attacks on Hindus.  And in both cases, the government moved as quickly and decisively as might be expected in Bangladesh.  One would have thought the government’s PR wing to be in full swing to trumpet the prime minister’s leadership.  Why the silence then?

And why is there a silence from the progressive activists, both within and outside the Awami League?  Never mind the mainstream media outlets like Prothom Alo.  Where is the progressive blogosphere that got into a frenzy over Meherjaan?

It would appear that just like protesting BSF killings is something that only happens when Awami League is in power, concern for the minorities is something for only when BNP is in power.  Needless to say, these selective outrages are both disgraceful.

Now, the regular reader would know, I don’t really do outrage.  Of course, bigotry in every form is to be condemned unequivocally.  But beyond that, is there anything more to say?

I think there are a few things about the incidence in Hathazari that should have been followed up.  I am not in a position to answer any of these questions, but let me ask them.

1. Who determined the route?

The trouble in Hathazari begun when a procession to celebrate the founding of a local Hindu institution passed a mosque.  Now, the ‘contested sacred space’ is not a new thing in the subcontinent.  Hindu processions near a mosque or Muslim processions near a temple used to cause communal trouble a century ago.  They shouldn’t create trouble now, because across the subcontinent, the local administration should know how to deal with them.

The founding anniversary of Loknath Sebasram wasn’t exactly a surprise that sprang on the community.  And I doubt the mosque was established yesterday.  Who determined the route of the procession?  Isn’t there any road other than the one passing the mosque?

2. Who vandalised the mosque?

From all accounts, there was a bit of kerfuffle, which was settled by the local murubbis.  Then someone apparently vandalised the mosque.  That some hot headed Hindu youth would do this seems very unlikely.  But then, who did it?

3. Who benefits?

Communalism in Bangladesh has a secular angle — property.  Is it too difficult to imagine some Muslim men showing up at one of those Hindu-owned businesses attacked in February, politely making the owner an offer that he can’t refuse?  Is it too difficult to imagine the Hindu shopkeeper being told ‘Dada, perhaps it’s time to see your relatives on the other side’?

The thing is, if these Hindu properties are to be grabbed, who will be doing the grabbing?

Dokhol is the Bangla word for grabbing, of land, businesses, local government tenders, bus stands, and anything and everything all the way to the Bangabhaban.  And it’s usually the ruling party that plays the game of dokhol.  Why should we think Hathazari is different?

4. Something more sinister?

As one might expect, Jamaat has been linked to the incidence.  Apparently this was about foiling the war crimes trial.  But exactly how, no one is told.

Never mind.  Suppose it was indeed Jamaat.  The thing is, the situation was brought under control with no loss of life, and far lower level of violence than, say, 2001.  As I said above, the government could (and should) have trumpeted this as success.  And it’s not like anyone is shy about kicking the ‘evil’ Jamaatis.  Why the silence then?

Perhaps it wasn’t Jamaat.  One of the country’s major qaumi madrassah, Al-Jamiatul Ahlia Darul Ulum Moinul Islam, is located there.  And contrary to what many believe, qaumi madrassahs aren’t exactly Jamaatis.  Could it be that the mob was led by some madrassah hujoor?

If so, what does that tell us?

Who attends these madrassahs?  A cross-section of rural and semi-rural Bengali Muslims, often from the lower strata of the society.  If communalism is returning among them, then everyone should be worried.

Dear reader, are you worried?

Tagged with: ,

4 Responses

Subscribe to comments with RSS.

  1. aguntok said, on April 11, 2012 at 10:30 pm

    সচলায়তনে সাতক্ষীরা জেলার ঘটনা নিয়ে ডিটেলস পোস্ট পড়েছে http://www.sachalayatan.com/porimanob/44101 এছাড়া আমার ব্লগেও বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেছেন ব্লগারেরা http://www.amarblog.com/sonnaasee/posts/146022#comment-1211240

    দুটি ব্লগই প্রো লিবারেশন বলে পরিচিত কাজেই আওয়ামীলীগ সরকার পাওয়ারে এসেছে বলেই সবাই চুপচাপ কথাটা মোটেও সত্য নয় । আর আপনি আপনার

    লেখায় কে মসজিদের দেওয়াল ভেঙেছে তা অনুমান করবার চেষ্টা করেছেন এই নিয়ে সমকাল পত্রিকা একটা নিউজ দিয়েছিল তাদের ওয়েব সাইট আর্কাইভ তা পাইনি তবে অনলাইনে নানা জায়গায় খবর খানা আছে
    http://dailyalochona.blogspot.com/2012/02/mukto-mona-hathazari-pogrom-update.html
    ফিরোজ শিবলী, চট্টগ্রাম ব্যুরো
    ‘বৃহস্পতিবার (৯ ফেব্রুয়ারি) রাতে আমি ঘুমে ছিলাম। ঘুম থেকে ডেকে মসজিদের দেয়াল ভাঙতে বলে এমদাদ উল্লাহ ও লোকমান। পরে তাদের কথামতো মসজিদের বারান্দার দেয়াল ভাঙি। তারা আমাকে ৫০ টাকা দেয়।’ গতকাল বৃহস্পতিবার বিচারিক হাকিম মাসুদ পারভেজের খাস কামরায় হাটহাজারীর নন্দীরহাট এলাকার রাজমিস্ত্রি মোঃ জসিম ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এসব কথা স্বীকার করেন।
    জবানবন্দিতে জসিম আরও বলেন, মসজিদ ভাঙতে রাজি না হলেও এমদাদ ও লোকমান তাকে বাধ্য করে। তাকে ৫০ টাকা দিয়ে বিষয়টি কাউকে না বলতেও নিষেধ করে। পরদিন মসজিদ ভাঙার গুজব ছড়িয়ে পড়লে শত শত লোক চট্টগ্রাম-হাটহাজারী সড়কে ব্যারিকেড দেয় ও হাটহাজারীতে মন্দির পুড়িয়ে দেয়।
    হাটহাজারী সার্কেলের সিনিয়র এএসপি বাবুল আকতার সমকালকে জানান, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় লোকমান ও এমদাদসহ হিন্দু এবং মুসলিম উভয়পক্ষের লোকজন নিয়ে সমঝোতা বৈঠকের চেষ্টা চলছিল। ওই সময় লোকমান ও এমদাদের ছেলেরা লোকনাথ মন্দিরে হামলা ও ভাংচুর চালায়। সে ঘটনা ধামাচাপা দিতে একই দিন রাতে রাজমিস্ত্রি জসিমকে
    দিয়ে মসজিদের কিছু অংশ ভাঙা হয়। লোকমান ও এমদাদের পেছনে কারা ইন্ধনদাতা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। জামায়াত-শিবিরের কোনো ইন্ধন আছে কি-না তারও তদন্ত চলছে।
    মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা হাটহাজারী থানার
    ওসি (তদন্ত) অং সা তোয়াই সমকালকে বলেন, গ্রেফতার হওয়া ১০ জনের মধ্যে চার জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে সাত দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে তাদের কাছ থেকে বেশকিছু চাঞ্চল্যকর তথ্য বেরিয়ে আসবে। ইতিমধ্যে গ্রেফতার হওয়া জসিম মসজিদ ভাঙার কথা স্বীকার করেছে।
    তদন্ত সংশ্লিষ্ট পুলিশ কর্মকর্তারা জানান, নন্দীরহাট এলাকায় লোকনাথ মন্দিরে উৎসব উপলক্ষে গত ৯ ফেব্রুয়ারি দুপুরে র‌্যালি বের করা হয়। এ সময় একই এলাকার হাজিপাড়া মসজিদের বাসিন্দারা নামাজ চলাকালে মাইক ছোট করে বাজানোর অনুরোধ করেন। কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে র‌্যালির পেছনে থাকা কে বা কারা মসজিদে ঢিল ছুড়ে মারলে কাচ ভাংচুর ও তিনজন মুসলি্ল আহত হন। এ ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে সন্ধ্যায় সমঝোতা বৈঠকের চেষ্টা চালায় প্রশাসন। এরই মধ্যে মন্দিরে ভাংচুর ও লুটপাট চালায় কে বা কারা।

    ১০ জন কারাগারে
    চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে সংঘর্ষ ও ভাংচুরের ঘটনায় গ্রেফতার হওয়া ১০ জনকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিচারিক হাকিম বেগম ইয়াসমিন আরা এ নির্দেশ দেন। একই সঙ্গে চার জনের রিমান্ড আবেদনের শুনানির দিন ধার্য্য করেন ২২ ফেব্রুয়ারি।
    জানা গেছে, তদন্ত কর্মকর্তা হাটহাজারী থানার ওসি অং সা তোয়াই গ্রেফতার হওয়া ১০ আসামির মধ্যে চার জনের সাত দিনের রিমান্ডের আবেদন করেন। গত বুধবার রাতে এএসপি বাবুল আকতারের নেতৃত্বে হাটহাজারীর নন্দিরহাট হাজিপাড়া থেকে রাজমিস্ত্রি জসিমকে গ্রেফতার করা হয়। পরে তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী নয় জনকে গ্রেফতার করা হয়। তারা হলেন_ এমদাদুল্লাহ, মোঃ লোকমান, মোঃ আবদুল করিম, মোঃ ফরিদ, মোঃ মনজুর আলম, মোঃ শাফি, মোঃ আবু তাহের, মোঃ ওসমান ও হাজী মোঃ বাদশা।

    • jrahman said, on April 12, 2012 at 11:29 am

      Aguntok, Jashim’s confession is reported in one of the blog posts I’ve linked above. It doesn’t actually say anything about the underlying issues that may be at play in Hathazari. Was this motivated by a desire to grab Hindu property? Does this reflect an uptick in communalism? These are the questions that the analysis — whether in the mainstream media or in the blogs — should focus on. And they clearly are not doing that.

      I stand by my observation about the selective nature of criticism. The Sachal piece that you link makes exactly the same point. And even in Sachal, how many posts were there on Meherjaan, or whether Musa Ibrahim climbed the Everest? How many are there on blatant minority persecution? How many posts would there be in Amar Blog had BNP been in power now?

    • tacit said, on April 12, 2012 at 9:23 pm

      The AL government loves to portray even the meeting of two Jamaat leaders as a deep conspiracy to fuel the war crimes trial. So, if Jamaat was actually causing these incidents, at least five hundred leaders and workers of Jamaat would have already been arrested, the government would have filed twenty cases against them, and Shahrear Kabir would have filed another twenty cases against them. So, your reasoning is plainly wrong.

  2. Hathazari images « Mukti said, on April 16, 2012 at 4:29 pm

    […] the fold are some images from the communal attack on the Hindu community of Hathazari.  (Photo credit: […]


Comments are closed.

%d bloggers like this: